যা ঘটছে ভেতরে বেডরুম বা ড্রয়িংরুমেই শেষ করে দেওয়া উচিত : জায়েদ

সম্প্রতি অভিনেত্রী মীম সঙ্গে শরিফুল রাজের সম্পর্ক হওয়ার অভিযোগ করেন পরীমনি। বিষয়টি প্রকাশ্যে আশার পর থেকে ব্যাপক সমালোচনার সৃষ্টি হচ্ছে। একের অপরের বিরুদ্ধে কাঁদা ছুড়া-ছুড়ি করছে। যার কারনে বিভিন্ন ধরনের নেতিবাচক ধারনা সৃষ্টি হচ্ছে তাদের সম্পর্কে। মীম-পরীমনির এমন দ্বন্দ্বকে কেন্দ্র করে যা জানালেন শিল্পী সমিতির সাবেক সাধারন সম্পাদক জায়েদ খান।

ঢাকাই ছবির অভিনেত্রী পরীমনি, তার স্বামী অভিনেতা শরিফুল রাজকে নিয়ে অভিনেত্রী বিদ্যা সিনহা মিমের সঙ্গে সম্পর্কের টানাপোড়েন চলছে।

দুই নায়িকার পা/ল্টাপাল্টি স্ট্যাটাস সোশ্যাল মিডিয়ায় আলোড়ন সৃষ্টি করেছে।

পরীমনির দাবি, রাজ-মিমের ‘অতি মাখামাখি’’ তার পরিবারের সুখ কেড়ে নিয়েছে। এদিকে নির্মাতা রায়হান রাফিকে দালাল বলে মন্তব্য করেন এই অভিনেত্রী।

বিষয়টি নিয়ে প্রথমে নীরব থাকলেও পরে নাম প্রকাশ না করে মুখ খুলেছেন মীম।

দুই নায়িকার দ্বন্দ্ব প্রকাশ্যে এলে তা নিয়ে মন্তব্য করেন চলচ্চিত্র সম্পাদক জায়েদ খান।

চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদকের মতে, তারকাদের ব্যক্তিগত বিষয়গুলো এভাবে প্রকাশ্যে আনা ঠিক নয়।

শুক্রবার রাতে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের জয়নুল আবেদীন মিলনায়তনে বৃহত্তর ময়মনসিংহ এসএসসি ৯২ ব্যাচের নবান্ন উৎসবে পারফর্ম করতে এসে সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে জায়েদ খান এসব কথা বলেন।

জায়েদ খান বলেন, তাদের (পীরমনি, রাজ ও মিম) মধ্যে যা ঘ/টছে ভেতরে বেডরুম বা ড্র/য়িংরুমেই শেষ ক/রে দেওয়া উচিত। শিল্পীদের ব্যক্তিগত জীবন থা/কবেই। তবে আমি ফেসবুক স্ট্যাটাসের মাধ্যমে এ বিষয়ে মানুষকে জানানোর পক্ষে নই। আমার জীবনে অনেক কিছু ঘটেছে, কিন্তু আমি কখনই ফেসবুক লাইভে এসে বলিনি। কারণ এটা মানুষকে হাসানো ছাড়া কোনো সমাধান দিতে পারবে না। শিল্পীদের বেডরুমে তাদের ব্যক্তিগত সমস্যা নিয়ে আলোচনা করা এবং ওখানেই শেষ করা উচিত।

জায়েদ মীম ও পরীমনিকে উদ্দেশ্য বলেন, তোমাদের এই ব্যাপারগুলো নিজেদের মধ্যে এবং ঘরের মধ্যেই যেন শে/ষ হয়। এটা নিয়ে আর কিছু বাহিরে আসুক। তা না হলে শিল্পীদের সম্মান কমবে, বাড়বে না।

প্রসঙ্গত, প্রতিটি ব্যক্তিগত জীবন থাকতে পারেন কিন্তু সে বাহিরে প্রকাশ হওয়া সমীচীন নয় বলেন মন্তব্য করেন জায়েদ খান। নিজেদের ঝামেলা নিজেরাই সমাধান করতে হবে বলেও জানান এই অভিনেতা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *