জনগণ যখন পাশে থাকে কোনো কিছুই আর অসাধ্য থাকে না : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

দেশের আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রনে কাজ করে যাচ্ছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। হঠাৎ যখন দেশে জ/ঙ্গি গোষ্ঠি অরাজগতা সৃষ্টির চেষ্টা শুরু করে তখনে প্রধানমন্ত্রীল আহ্বানে দেশের মানুষ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে সহযোগিতা করায় তাদের কঠোর হস্তে দমন করতে সক্ষম হয়। সরকারের একার পক্ষ কখনো স/ন্ত্রাস, জ/ঙ্গিসহ অপরাধমূলক কর্মকান্ড নিয়ন্ত্রন করা। জনগন পাশে থাকলে সব কিছু সম্ভব মন্তব্য যে কথা জানালেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

জনগণ সঙ্গে থা/কলে কোনো কিছুই বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারে না বলে মন্তব্য করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

শনিবার (২৯ অক্টোবর) রাজধানীর রাজারবাগ পুলিশ অডিটোরিয়ামে ‘কমিউনিটি পুলিশিং ডে-২০২২’ উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ মন্তব্য করেন।

মন্ত্রী বলেন, আমরা যখন জ/ঙ্গিবাদ ও স/ন্ত্রাসবাদ মোকাবেলায় কঠিন সমস্যার সম্মুখীন হয়েছিলাম, তখন প্রধানমন্ত্রী সর্বস্তরের জনগণকে রুখে দাঁড়ানোর আহ্বান জানান। সে সময় সর্বস্তরের মানুষ জ/ঙ্গিদের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ায়।

সে সময় আমরা অভূতপূর্ব সাফল্য দেখেছি, সর্বস্তরের মানুষ জ/ঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়িয়েছে। মানুষ থাকলে কিছুই অসম্ভব নয়।

কমিউনিটি পুলিশিংয়ের বিষয়টি তুলে ধরে তিনি বলেন, কীভাবে সমাজকে আরও সুন্দর ও পরিচ্ছন্ন করা যায় তার উদাহরণ এখন সর্বত্র। আমাদের সমাজে এখনো কিছু চ্যালেঞ্জ আছে, বাল্যবিবাহ-ইভটিজিং অনেক কমেছে। কিন্তু মা/দক নিয়ন্ত্রণ করতে না পারলে ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে বাঁচানো যাবে না। সেখানে কাজ করতে হবে।

বিশ্বব্যাপি ছড়িয়ে পড়া রোগের কারণে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় যুব সমাজের কোনো কাজ ছিল না, যত্রতত্র কিশোর গ্যাং গড়ে উঠেছে। এটির এখনও একটি বিরূপ প্রভাব আছে। সেখানেও কাজ করতে হবে।

মন্ত্রী বলেন, আগে গ্রামে বিচার হতো, কমিউনিটি পুলিশিংয়ের লক্ষ্যও একই। আমরা নিজেরাই নিজেদের সমস্যার সমাধান করতে পারলে অপরাধ অনেক কমে যাবে। আর পুলিশ সব সময় আছে।

কমিউনিটি পুলিশিং এর ভূমিকা সমাজকে সমর্থন করা। এখানে আমর ১০০% সফল হয়েছি।

প্রসঙ্গত, দেশের আইনশৃঙ্খল নিয়ন্ত্রনে বড় ধরনের সহযোগিতা করাতে পারে জনগণ। কারনে তারা নিজেরা সচেতন হলে অনেক অপরাধ কমে যায়।

 

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *