গ্রেফতারের পর এবার আদালত থেকে দুঃসংবাদ পেলো সেই বুশরা

সম্প্রতি বয়েটের ছাত্র ফারদিন নিখোঁজ হওয়ার তিন পর তার মরদেহে নদী থেকে উদ্ধার করে পুলিশ। এমন জঘণ্য ঘটনার বিষয়টি মিডিয়ায় প্রকাশ হওয়ার পর থেকে ব্যাপক আলোচনার সৃষ্টি হয়। বিষয়টি নিয়ে ব্যাপক তৎপর হয় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। এ ঘটনার জন্য ফারদিনের বান্ধবিসহ অজ্ঞাতদের বিরুদ্ধে মামলা করে তার বাবা। পরে পুলিশ ফারদিনের বান্ধবী বুশরাকে গ্রেফতার করে।

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ছাত্র ফারদিন নূর পরশ (২৪) হ/ত্যার ঘটনায় দায়ের করা মামলায় বান্ধবী বুশরাকে ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

বৃহস্পতিবার (১০ নভেম্বর) ঢাকা মহানগর হাকিম মেহেদী হাসান বুশরার ৫ দিনের রিমান্ডের আদেশ দেন।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর রামপুরা থেকে গ্রেপ্তারের পর তাকে আদালতে হাজির করা হয়। এরপর মামলার সুষ্ঠু তদন্তের জন্য সাত দিনের রিমান্ডের আবেদন করে রামপুরা থানা পুলিশ।

এর আগে বুধবার বুশরাসহ অজ্ঞাতদের নামে হ/ত্যা মামলা করেন ফারদিনের বাবা।

বৃহস্পতিবার সকালে রাজধানীর রামপুরায় নিজ বাড়ি থেকে বুশরাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

বান্ধবী বুশরা একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী। নি/হত ফারদিন বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) পুরকৌশল বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র ছিলেন। তার বাবা কাজী নূর উদ্দিন একজন সাংবাদিক।

গত ৪ নভেম্বর রাজধানীর ডেমরা থেকে নিখোঁজ হন বুয়েটের ছাত্র ফারদিন। পরে সন্তানকে খুঁজতে ফেসবুকে একটি পোস্ট দেন নূরউদ্দিন রানা।

সেখানে তিনি বলেন, ফারদিন বুয়েটের সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ১৮তম ব্যাচের ছাত্র।

শুক্রবার রাতে নিখোঁজ হওয়ার আগে তাকে রামপুরা ব্রিজ এলাকায় শেষ দেখা যায়। ফারদিন ওইদিন সোয়া ১১টা থেকে ১১টার মধ্যে সেখানে অবস্থান করছিলেন। এরপর তার হল বা বাসায় ফেরার কথা ছিল। কিন্তু তিনি ফিরে আসেননি।

সোমবার (৭ নভেম্বর) সন্ধ্যায় নারায়ণগঞ্জ সদরের সিদ্ধিরগঞ্জ বনানী ঘাট এলাকার শীতলক্ষ্যা নদী থেকে ফারদিনের লা/শ উদ্ধার করে নৌ পুলিশ।

প্রসঙ্গত, প্রকৃত ঘটনা সম্পর্কে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ রিমান্ডের আবেদন করেন। তার পরিপ্রেক্ষিতে বুশরার রিমান্ড মঞ্জুর করে আদালত।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *