অনেকেই জানতে চান , বেকিং সোডা এবং বেকিং পাউডার – এর মধ্যে কোনো পার্থক্য আছে কি নেই ? আর থাকলে সেটা কি কি ? আসলে এই দুটির মধ্যে অনেক পার্থক্য রয়েছে ।
চলুন জেনে নেওয়া যাক বেকিং সোডা এবং বেকিং পাউডারের মধ্যে পার্থক্যগুলো…

বেকিং পাউডার ও বেকিং সোডা দুটিই কার্বন-ডাই-অক্সাইড উৎপন্ন করে যা খাবারকে ফোলাতে সাহায্য করে। বেকিং পাউডারে বেকিং সোডা আছে কিন্তু বেকিং সোডাতে শুধু একটিই উপাদান আছে।
বেকিং সোডা :

বেকিং সোডা হলো পিওর সোডিয়াম বাই-কারবোনেট। বেকিং সোডা যখন কোনো ভেজা এবং এসিডিক উপাদান যেমনঃ দই, চকলেট, বাটারমিল্ক, মধু ইত্যাদির সাথে মেশানো হয় তখন কেমিক্যাল রি-একশন-এর মাধ্যমে কার্বন-ডাই-অক্সাইড উৎপন্ন করে যা তাপমাত্রার মাধ্যমে খাবারকে ফোলাতে সাহায্য করে।
বেকিং পাউডার :

বেকিং পাউডারেও সোডিয়াম-বাই-কারবোনেট আছে।কিন্তু এতে আরো আছে ক্রিম অফ টারটার এবং স্টার্চ। বেকিং পাউডার দুই ধরনের হয়- সিঙ্গল এক্টিং এবং ডাবল এক্টিং। সিঙ্গেল এক্টিং বেকিং পাউডার এক্টিভেট হয় ভেজা অবস্থায়। ডাবল এক্টিং বেকিং পাউডার দুইভাবে কাজ করে- কিছু গ্যাস রুম টেম্পারেচারে ছাড়ে আর কিছু গ্যাস ওভেনে দেয়ার পর।

কিছু রেসিপিতে বেকিং সোডা আর কিছু রেসিপিতে বেকিং পাউডার আবার কোনো কোনো রেসিপিতে দুটোর কথাই লেখা থাকে বলে আপনারা কনফিউসড হয়ে যান। মনে রাখবেন বেকিং সোডার পরিবর্তে আপনি বেকিং পাউডার ইউজ করতে পারবেন। কিন্তু কোনো অবস্থাতেই বেকিং পাউডারের পরিবর্তে বেকিং সোডা ইউজ করতে পারবেননা। বেকিং পাউডার বেকিং আইটেমের একটি কমন উপাদান। বেকিং সোডা কুকিজ তৈরিতে বেশী ইউজ করা হয়।

বেকিং সোডা হলো পিওর সোডিয়াম কার্বনেট. এটা ওভেন টেম্পারেচার এ কার্বন-ডাই-অক্সিইড এর বাবল উত্পন্ন করে যা খাদ্য কে ফুলে উঠতে সাহায্য করে. আর বেকিং পাউডার এর মধ্যে সোডিয়াম কার্বনেট সহ অ্যাসিড জাতীয় এজেন্ট থাকে যার কাজ অনেকটা বেকিং সোডার মতই. কিন্তু বেকিং পাউডার বেকিং সোডার তিন গুন ব্যবহার করতে হয় কারণ কক্ষ তাপমাত্রায় ইহা কার্বন-ডাই-অক্সিইড ত্যাগ করা শুরু করে এবং সাধ তীক্ষ্ণ করে ।

News Page Below Ad