সাবেক মেয়র সাঈদ খোকনকে নিয়ে গত কয়েক সপ্তাহ ধরে নানা রকম আলোচনা সমালোচনা চলছে। এই সাবেক মেয়রের বিরুদ্ধে বেশ কিছু অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। আর এই সকল অনিয়ম ও দুর্নীতির সংবাদ প্রকাশ পাওয়ার পর সাবেক মেয়র সাঈদ খোকন মুখ খুলেন। তিনি বর্তমান মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপসকে নিয়ে বেশ কিছু বক্তব্য দেন। এরপর থেকে ক্ষমতাসীন দলের মধ্যেই সাবেক মেয়র সাঈদ খোকনকে নিয়ে ব্যাপক আলোচনা শুরু হয়। আর এবার এই সাবেক মেয়রকে হুঁশিয়ারি দিল আইনজীবীরা।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) বর্তমান মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপসকে নিয়ে বিভ্রা’ন্তকর বক্তব্য দেওয়ায় সাবেক মেয়র সাঈদ খোকনের বাড়ি ঘেরাওয়ের হুঁ’শি’য়া’রি দিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের আওয়ামী লীগ সমর্থিত আইনজীবীরা।

রবিবার (১০ জানুয়ারি) সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি ভবনের সামনে সাধারণ আইনজীবীদের ব্যানারে আয়োজিত প্রতিবাদ সভায় বক্তারা এই হুঁ’শি’য়া’রি দেন।

সাধারণ আইনজীবী পরিষদের আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট ড. মো. মমতাজ উদ্দিন আহমেদ মেহেদী বলেন, ’সাবেক মেয়র সাঈদ খোকন যে কিনা ডেঙ্গু-জলাবদ্ধতা নিরসনে ব্যর্থ, দুর্নীতিবাজ, শত শত কোটি টাকার দুর্নীতির দায়ে অভিযুক্ত, রাস্তা-ঘাট উন্নয়নে ব্যর্থ হয়েছেন। সেই ব্যর্থ মেয়রের বিরুদ্ধে আজকের এই প্রতিবাদ সভা।

তিনি বলেন, ’ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস, যে কিনা আমাদের দেশের গণমানুষের নন্দিত নেতা। সেই নেতাকে নিয়ে তিনি (সাঈদ খোকন) কিছু বিভ্রান্তি সৃষ্টি করেছেন। তাই আমরা সাঈদ খোকনের বিচার চাই। আমরা সাঈদ খোকনের বিরুদ্ধে মামলা করবো। রাজনৈতিকভাবে তাকে প্রতিহত করবো।’

অ্যাডভোকেট মেহেদী বলেন, ’সাঈদ খোকনের মতো কুলাঙ্গারদের জায়গা বাংলাদেশ আওয়ামী লীগে হতে পারে না। আমরা কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ থেকে তার বহিষ্কারের জোর দাবি জানাচ্ছি। আমাদের সর্বস্তরের আইনজীবীদের একটাই দাবি— প্রধানমন্ত্রী, আপনি সাঈদ খোকনকে দল থেকে বহিষ্কার করুন।’

এসময় সভায় উপস্থিত বক্তারা বলেন,সাঈদ খোকন একজন ব্যর্থ মেয়র হয়েও আধুনিক ঢাকার স্বপ্নদ্রষ্টা ফজলে নূর তাপসকে নিয়ে মিথ্যাচার শুরু করেছেন। তিনি ব্যারিস্টার তাপস সম্পর্কে মিথ্যা বক্তব্য দিচ্ছেন। তার এমন বক্তব্যের কারণে আমরা তার বাড়ি ঘেড়াও করবো। একজন যোগ্য বাবার সন্তান হয়েও তার বক্তব্য গ্রহণযোগ্য নয়। তিনি একজন যোগ্য বাবার উত্তরসূরী হয়েও মেয়র নির্বাচনে নমিনেশনের জন্য ঢাকাবাসীর সামনে কান্নাকাটি করছিলেন। যোগ্যতার ভিত্তিতে নয়, আবেগের ভিত্তিতে তিনি নমিনেশন ভিক্ষা চেয়েছিলেন। উনার কোনও লজ্জাই নেই। কেন না, মেয়র থাকা অবস্থায়ও তিনি আমাদের প্রায় গ্রামে পাঠিয়ে দিচ্ছিলেন। মূলত তার (সাঈদ খোকন) বিরুদ্ধে যে তদন্ত চলছে, সেখান থেকে বাঁচার জন্যই তিনি ব্যারিস্টার তাপস সম্পর্কে বিভ্রান্তকর বক্তব্য দিচ্ছেন। আমরা তার বক্তব্যের তীব্র প্রতিবাদ জানাই।
প্রসঙ্গত, রাজধানীর ফুলবাড়িয়া মার্কেট থেকে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের অভিযান পরিচালনা নিয়ে উচ্ছেদকারীদের পক্ষে বক্তব্য রাখেন সাবেক মেয়র সাঈদ খোকন। তার সেই বক্তব্যকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগ সমর্থিত আইনজীবীরা প্রতিবাদ সভা করেন।

এদিকে, এই সাবেক মেয়র সাঈদ খোকনের বিরুদ্ধে এখনো নানা রকম অনিয়ম ও দুর্নীতির সংবাদ প্রকাশ্যে আসছে। তবে এই সকল অভিযোগ অস্বীকার করেছেন সাঈদ খোকন। তিনি বলেন তার বিরুদ্ধে কিছু লোক ষ’ড়’য’ন্ত্র করছেন। তবে তিনি মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপসকে নিয়ে যে বক্তব্য দিয়েছেন তা নিয়ে ব্যাপক আলোচনা শুরু হয়েছে।