আজ সোমবার (২৯ জুন) সকালে ১০টার দিকে পুরান ঢাকার শ্যামবাজারের কাছে বুড়িগঙ্গায় একটি লঞ্চডুবির ঘটনা ঘটেছে। জানা গেছে এই যাত্রীবাহি লঞ্চে প্রায় শতাধিক যাত্রী ছিল। এই লঞ্চডুবির ঘটনা এখন পর্যন্ত ৩০ জনের নিথর দেহ উদ্ধার করা হয়েছে। আর এই ঘটনার পর ওই স্থানে যান পরিদর্শন করে নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী। তিনি এই বিষয়ে গণমাধ্যমের সাথে কথা বলেছেন।

তিনি আজকের লঞ্চডুবির ঘটনাটি সম্পূর্ণ পরিকল্পিতভাবে ঘটানো হয়েছে বলে মনে হচ্ছে।

বেলা সাড়ে ৩টার দিকে তিনি ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের বলেন, ’আজকের ঘটনাটি অন্যান্য ঘটনা থেকে একেবারেই আলাদা। আমি সিসিটিভি ফুটেজ দেখেছি এবং দেখার পরে আমার কাছে মনে হয়েছে ঘটনাটি ইচ্ছাকৃতভাবে ঘটানো হয়েছে। এটা মনে হচ্ছে একটা হ’’ত্যাকাণ্ড।’

ঘটনা তদন্তে একজন যুগ্ম সচিবের নেতৃত্বে সাত সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছে এবং কমিটিকে এক সপ্তাহের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে জানিয়ে খালিদ মাহমুদ বলেন, ’তদন্তের পরে আমরা প্রয়োজনীয় আইনি ব্যবস্থা নেব।’

প্রতিমন্ত্রী বলেন, সরকারের পক্ষ থেকে প্রত্যেক পরিবারকে দাফনের জন্য ১০ হাজার টাকা এবং প্রতিটি পরিবারকে ক্ষতিপূরণ হিসাবে এক লাখ ৫০ হাজার টাকা প্রদান করবেন।

এই লঞ্চডুবির পর বেশ কয়েকজন সাঁতড়িয়ে পাড়ে উঠতে পারে। তাদের মধ্যে একজন ব্যক্তি বলেন এই ঘটনার সময় মাত্র ১০ সেকেন্ডের মধ্যে লঞ্চডুবে যায়। আর এই সময় অনেকে লঞ্চের ভিতরে থেকে যায় বলেন তিনি। এমনকি এই ব্যক্তির দুইজন লোকও লঞ্চ থেকে বের হতে পারেননি বলেন তিনি।