বর্তমান সময়ে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইনের মাধ্যমে সাধারণ মানুষ অনেক উপকৃত হচ্ছে। যে কোন ব্যবসায়ী কোন ক্রেতাকে ঠকালে সেই ক্রতা ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইনের মাধ্যমে সেই ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে ব্যবস্তা নিতে পারেন। এবার তেমন একটি ঘটনা ঘটেছে। বিমানবন্দরে ব্যবসায়ীদের কথা অনুযায়ী তাদের কাছে খালি পানির বোতল জমা দিলে পাঁচ টাকা ফেরত দিবেন। তবে পানির খালি বোতল নিয়ে পাঁচ টাকা ফেরত না দেয়ার জন্য বিমানবন্দরের দুই ব্যবসায়ীকে ১০ হাজার টাকা করে জরিমানা গুনতে হয়েছে। বিমানবন্দরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটকে দু’জন ক্রেতা এই অভিযোগ করলে তিনি এ জরিমানা করেন। দুই ক্রতার মধ্যে একজন কিশোর, অন্যজন তরুণ এ অভিযোগ করেন।
হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আহমেদ জামিল গতকাল সোমবার রাতে গনমাধ্যামকে জানান, ই কিশোর ও তরুণ বিমানবন্দরে এসেছিল তাদের পরিবারের লোকজন বাহির দেশ থেকে এসেছে তাদের নিতে। অপেক্ষার ফাঁকে তারা বিমানবন্দরের ক্যানপির বাইরের দিকে অবস্থিত দু’টি দোকান থেকে পানি ও কোমল পানীয় কিনেছিল।

দাম দিতে গিয়ে তারা দেখতে পায়, দোকানি বোতলের গায়ে লেখা দামের চেয়ে পাঁচ টাকা বেশি রাখছেন। দোকানের এক পাশে টাঙানো ব্যানারে লেখা আছে যে খালি বোতল ফেরত দিলে পাঁচ টাকা ফেরত দেয়া হবে। অথচ দোকানি সে বিষয়ে কিছু বলছে না। দোকানিকে এ বিষয়ে জিজ্ঞেস করলে সে জানায়- বোতল ফেরত দিয়ে পাঁচ টাকা নিতে হলে নাকি আরও পাঁচ টাকা দিতে হবে!

ম্যাজিস্ট্রেট বলেন, বাধ্য হয়েই তারা কল দিলেন এয়ারপোর্ট ম্যাজিস্ট্রেটের নম্বরে। অপরাধী দুই দোকানির প্রত্যেককে দশ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে।

ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইনেরন আইন অনুযায়ী কেউ অভিযোগ করলে তাকে জরিমানা করা অর্থের ২৫ শতাংশ দেয়া হয়। সে অনুযায়ী ১০,০০০ হাজার টাকা জরিমানায় ২,৫০০ টাকা করে পেয়েছেন তারা।

তিনি জানান, এই অভিযোগকারীদের মধ্যে এক জনের নাম নাদিম হোসেন সে নবম শ্রেণির ছাত্র। এ অল্প বয়সে সে নিজের অধিকার সম্পর্কে সচেতন এবং তার সাথে এ ঘটনাটি ঘটার পর সে ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে অভিযোগ করেছে। এটা আসলেই অনেক প্রশংসাজনক কাজ।

অন্য অভিযোগকারী তার নাম প্রকাশ করতে না চাওয়ায় তার পরিচয়
প্রকাশ করেনি কর্তৃপক্ষ।