করোনা ভাইরাসের কারণে বর্তমানে গোটা বিশ্ব বিপর্যস্থ। আর এই করোনা ভাইরাসের প্রথম থেকে ভ্যাকসিন আবিষ্কার করার চেষ্টা করে যাচ্ছে বিশ্বের বিভিন্ব দেশের অসংখ্য গবেষক। এদিকে, বাংলাদেশের গবেষকরাও থেমে নেই তারাও প্রথম থেকে করোনা ভাইরাস নিয়ে নানা রকম গবেষণা করছে। এছাড়া প্রথম থেকে বাংলাদেশেও করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিন আবিষ্কারের চেষ্টা করছে বাংলাদেশের গবেষক দল। আর এবার বাংলাদেশের গবেষকরা বলছে তারা করোনার ভ্যাকসিন আবিষ্কার করতে সক্ষম হয়েছে।


কোভিড-১৯ প্রতিরোধে বাংলাদেশে প্রথম টিকা (ভ্যাকসিন) আবিষ্কারের দাবি করেছে গ্লোব বায়োটেক লিমিটেড নামে একটি প্রতিষ্ঠান। আজ বুধবার প্রতিষ্ঠানটি দাবি করেছে, তারা পশুর শরীরে এই ভ্যাকসিনের সফলতা পেয়েছেন। মানবদেহেও এর সফলতা পাওয়া সম্ভব বলে আশা করছেন তারা।

প্রতিষ্ঠানটির আরএনডি ডিপার্টমেন্টের প্রধান ডা. আসিফ মাহমুদ জানান গণমাধ্যমকে বলেন, ’আসলে আমরা কাজ শুরু করার পর প্রাথমিকভাবে এটা নিয়ে সফল হয়েছি। এনিমেল মডেলে এটা সফল হয়েছে। এখন আমরা আশা করি মানবদেহেও এটা সফলভাবে কাজ করবে। আমরা বিষয়টি নিয়ে এখন সরকারের সংশ্লিষ্ট দপ্তরগুলোর কাছে যাব। এরপর তাদের দেওয়া গাইডলাইন অনুযায়ী পর্ববর্তী ধাপগুলো সম্পন্ন করবো৷’ সূত্র:দৈনিক আমাদের সময়

এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে ওই প্রতিষ্ঠানটি জানায়, এনসিবিআই ভাইরাস ডাটাবেজ অনুযায়ী গতকাল মঙ্গলবার পর্যন্ত বিশ্বব্যাপী ৫ হাজার ৭৪৩টি সম্পূর্ণ জিনোম সিকোয়েন্স জমা হয়েছে। যার মধ্যে বাংলাদেশ থেকে জমা হয়েছে ৭৬টি। উক্ত সকল সিকোয়েন্স বায়োইনফরম্যাটিক্স টুলের মাধ্যমে পরীক্ষা করে গ্লোব বায়োটেক লিমিটেড তাদের টিকার টার্গেট নিশ্চিত করে। যা যৌক্তিকভাবে এই ভৌগোলিক অঞ্চলে অধিকতর কার্যকরী হবে বলে আশা করছেন তারা।

উক্ত টার্গেটের সম্পূর্ণ কোডিং সিকোয়েন্স যুক্তরাষ্ট্রের এনসিবিআই ভাইরাস ডাটাবেজ-এ জমা দিয়েছেন যা ইতিমধ্যেই এনসিবিআই কর্তৃক স্বীকৃত ও প্রকাশিত হয়েছে। গ্লোব বায়োটেক লিমিটেডের গবেষণাগারে আবিষ্কৃত টিকাটির বিশদ বিশ্লেষণের পর ল্যাবরেটরি এনিমেল মডেলে পরীক্ষামূলকভাবে প্রয়োগ করে যথাযথ এন্টিবডি তৈরিতে সন্তোষজনক ফলাফল পেয়েছেন বলে দাবি করছেন তারা।

এই বিষয়ে গ্লোব বায়োটেক লিমিটেডের চেয়ারম্যান মো. হারুনুর রশিদ বলেন, ’এই টিকাটির সুরক্ষা ও কার্যকারিতা নিরীক্ষার লক্ষ্যে আমরা ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল শুরু করার জন্য কাজ করে যাচ্ছি। এই সুরক্ষা ও কার্যকারিতা পরীক্ষায় সরকারের সর্বাত্মক সহযোগিতা একান্তভাবে কামনা করছি।’

তিনি জানান, আগামীকাল বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টায় গ্লোব বায়োটেক লিমিটেড কোভিড -১৯-এর টিকা আবিষ্কার নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে বিস্তারিত জানানো হবে।

এই বিষয়ে জানতে চাইলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক (হেলথ ইমারজেন্সি অপারেশন সেন্টার অ্যান্ড কন্ট্রোল রুম) ডা. আয়েশা আক্তার গণমাধ্যমকে বলেন, ’আমাদের এখনো এমন কিছু জানানো হয়নি। নিয়ম অনুযায়ী তারা বিষয়টি অফিসিয়ালি চিঠি দিয়ে আমাদের জানাবে। এরপর আমরা সেটা দেখব।’

গ্লোব বায়োটেক লিমিটেডের সিইও ড. কাকন নাগ এবং সিওও ড. নাজনীন সুলতানার সার্বিক তত্ত্বাবধানে এই ভ্যাকসিন আবিষ্কার করতে সক্ষম হয়েছে বলে জানায় প্রতিষ্ঠানটি। তারা গবেষণার পাশাপাশি কোভিড-১৯ ’শনাক্তকরণ কিট, টিকা এবং ওষুধ’ আবিষ্কার সংক্রান্ত গবেষণা কর্মকাণ্ড শুরু করেছে।

গ্লোব বায়োটেক লিমিটেড ২০১৫ সালে ক্যানসার, আর্থ্রাইটিস, রক্তস্বল্পতা, উচ্চ রক্তচাপ, অটোইমিউন ডিজিজসহ অন্যান্য দুরারোগ্য রোগ নিরাময়ের জন্য বায়োলজিক্স, নোভেল ড্রাগ এবং বায়োসিমিলার উৎপাদনের লক্ষ্যে অত্যাধুনিক গবেষণাগার স্থাপনের মাধ্যমে যাত্রা শুরু করে।

এদিকে, বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মতো বাংলাদেশের গবেষক দল করোনার কার্যকারী ভ্যাকসিন তৈরির জন্য আপরান চেষ্টা করে যাচ্ছে। আর ইতিমধ্যে বাংলাদেশের গবেষকারা করোনার ভ্যাকসিন আবিস্কার করে তা পশুর শরীরে প্রয়োক করেছে। সেই সাথে বাংলাদেশের গবেষক দল দাবি করছে তারা অনেকটা সফল হয়েছে। আর এখন তারা এই বিষয়ে আরো পরীক্ষা করছে বলছে গবেষক দল। আর এই প্রথম বাংলাদেশে করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিন আবিস্কারের দাবি করেছে এই গবেষক দল।
বাংলাদেশে প্রথম করোনার ভ্যাকসিন আবিষ্কারের দাবি, ভ্যাকসিনের সফলতা পেয়েছে
Logo
Print

স্বাস্হ্য

 

করোনা ভাইরাসের কারণে বর্তমানে গোটা বিশ্ব বিপর্যস্থ। আর এই করোনা ভাইরাসের প্রথম থেকে ভ্যাকসিন আবিষ্কার করার চেষ্টা করে যাচ্ছে বিশ্বের বিভিন্ব দেশের অসংখ্য গবেষক। এদিকে, বাংলাদেশের গবেষকরাও থেমে নেই তারাও প্রথম থেকে করোনা ভাইরাস নিয়ে নানা রকম গবেষণা করছে। এছাড়া প্রথম থেকে বাংলাদেশেও করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিন আবিষ্কারের চেষ্টা করছে বাংলাদেশের গবেষক দল। আর এবার বাংলাদেশের গবেষকরা বলছে তারা করোনার ভ্যাকসিন আবিষ্কার করতে সক্ষম হয়েছে।


কোভিড-১৯ প্রতিরোধে বাংলাদেশে প্রথম টিকা (ভ্যাকসিন) আবিষ্কারের দাবি করেছে গ্লোব বায়োটেক লিমিটেড নামে একটি প্রতিষ্ঠান। আজ বুধবার প্রতিষ্ঠানটি দাবি করেছে, তারা পশুর শরীরে এই ভ্যাকসিনের সফলতা পেয়েছেন। মানবদেহেও এর সফলতা পাওয়া সম্ভব বলে আশা করছেন তারা।

প্রতিষ্ঠানটির আরএনডি ডিপার্টমেন্টের প্রধান ডা. আসিফ মাহমুদ জানান গণমাধ্যমকে বলেন, ’আসলে আমরা কাজ শুরু করার পর প্রাথমিকভাবে এটা নিয়ে সফল হয়েছি। এনিমেল মডেলে এটা সফল হয়েছে। এখন আমরা আশা করি মানবদেহেও এটা সফলভাবে কাজ করবে। আমরা বিষয়টি নিয়ে এখন সরকারের সংশ্লিষ্ট দপ্তরগুলোর কাছে যাব। এরপর তাদের দেওয়া গাইডলাইন অনুযায়ী পর্ববর্তী ধাপগুলো সম্পন্ন করবো৷’ সূত্র:দৈনিক আমাদের সময়

এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে ওই প্রতিষ্ঠানটি জানায়, এনসিবিআই ভাইরাস ডাটাবেজ অনুযায়ী গতকাল মঙ্গলবার পর্যন্ত বিশ্বব্যাপী ৫ হাজার ৭৪৩টি সম্পূর্ণ জিনোম সিকোয়েন্স জমা হয়েছে। যার মধ্যে বাংলাদেশ থেকে জমা হয়েছে ৭৬টি। উক্ত সকল সিকোয়েন্স বায়োইনফরম্যাটিক্স টুলের মাধ্যমে পরীক্ষা করে গ্লোব বায়োটেক লিমিটেড তাদের টিকার টার্গেট নিশ্চিত করে। যা যৌক্তিকভাবে এই ভৌগোলিক অঞ্চলে অধিকতর কার্যকরী হবে বলে আশা করছেন তারা।

উক্ত টার্গেটের সম্পূর্ণ কোডিং সিকোয়েন্স যুক্তরাষ্ট্রের এনসিবিআই ভাইরাস ডাটাবেজ-এ জমা দিয়েছেন যা ইতিমধ্যেই এনসিবিআই কর্তৃক স্বীকৃত ও প্রকাশিত হয়েছে। গ্লোব বায়োটেক লিমিটেডের গবেষণাগারে আবিষ্কৃত টিকাটির বিশদ বিশ্লেষণের পর ল্যাবরেটরি এনিমেল মডেলে পরীক্ষামূলকভাবে প্রয়োগ করে যথাযথ এন্টিবডি তৈরিতে সন্তোষজনক ফলাফল পেয়েছেন বলে দাবি করছেন তারা।

এই বিষয়ে গ্লোব বায়োটেক লিমিটেডের চেয়ারম্যান মো. হারুনুর রশিদ বলেন, ’এই টিকাটির সুরক্ষা ও কার্যকারিতা নিরীক্ষার লক্ষ্যে আমরা ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল শুরু করার জন্য কাজ করে যাচ্ছি। এই সুরক্ষা ও কার্যকারিতা পরীক্ষায় সরকারের সর্বাত্মক সহযোগিতা একান্তভাবে কামনা করছি।’

তিনি জানান, আগামীকাল বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টায় গ্লোব বায়োটেক লিমিটেড কোভিড -১৯-এর টিকা আবিষ্কার নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে বিস্তারিত জানানো হবে।

এই বিষয়ে জানতে চাইলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক (হেলথ ইমারজেন্সি অপারেশন সেন্টার অ্যান্ড কন্ট্রোল রুম) ডা. আয়েশা আক্তার গণমাধ্যমকে বলেন, ’আমাদের এখনো এমন কিছু জানানো হয়নি। নিয়ম অনুযায়ী তারা বিষয়টি অফিসিয়ালি চিঠি দিয়ে আমাদের জানাবে। এরপর আমরা সেটা দেখব।’

গ্লোব বায়োটেক লিমিটেডের সিইও ড. কাকন নাগ এবং সিওও ড. নাজনীন সুলতানার সার্বিক তত্ত্বাবধানে এই ভ্যাকসিন আবিষ্কার করতে সক্ষম হয়েছে বলে জানায় প্রতিষ্ঠানটি। তারা গবেষণার পাশাপাশি কোভিড-১৯ ’শনাক্তকরণ কিট, টিকা এবং ওষুধ’ আবিষ্কার সংক্রান্ত গবেষণা কর্মকাণ্ড শুরু করেছে।

গ্লোব বায়োটেক লিমিটেড ২০১৫ সালে ক্যানসার, আর্থ্রাইটিস, রক্তস্বল্পতা, উচ্চ রক্তচাপ, অটোইমিউন ডিজিজসহ অন্যান্য দুরারোগ্য রোগ নিরাময়ের জন্য বায়োলজিক্স, নোভেল ড্রাগ এবং বায়োসিমিলার উৎপাদনের লক্ষ্যে অত্যাধুনিক গবেষণাগার স্থাপনের মাধ্যমে যাত্রা শুরু করে।

এদিকে, বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মতো বাংলাদেশের গবেষক দল করোনার কার্যকারী ভ্যাকসিন তৈরির জন্য আপরান চেষ্টা করে যাচ্ছে। আর ইতিমধ্যে বাংলাদেশের গবেষকারা করোনার ভ্যাকসিন আবিস্কার করে তা পশুর শরীরে প্রয়োক করেছে। সেই সাথে বাংলাদেশের গবেষক দল দাবি করছে তারা অনেকটা সফল হয়েছে। আর এখন তারা এই বিষয়ে আরো পরীক্ষা করছে বলছে গবেষক দল। আর এই প্রথম বাংলাদেশে করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিন আবিস্কারের দাবি করেছে এই গবেষক দল।
Template Design © Joomla Templates | GavickPro. All rights reserved.