করোনা ভাইরাসের দাপটে বর্তমানে বিশ্বের প্রতিটি দেশে কাঁপছে। এই করোনা ভাইরাস থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য একটি কার্যকরী ভ্যাকসিন আবিস্কার করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের কয়েক শত কবেষক। আর ইতিমধ্যে বিশ্বের বেশ কিছু দেশে করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিন আবিষ্কার করেছে বলে প্রায় সময় গণমাধ্যমে এসেছে। এছাড়া অনেক দেশে করোনার ভ্যাকসিন অবিস্কার করে দাবি করেছে তারা অনেকটা সফল হচ্ছে। আর এবার করোনা ভাইরাসের একটি ভ্যাকসিন আবিস্কার করে নাইজেরিয়া সেই ভ্যাকসিন সম্পর্কে আশার বানী শুনিয়েছে।


নভেল করোনাভাইরাস প্রতিরোধে সফল একটি ভ্যাকসিন আবিষ্কারের ঘোষণা দিয়েছে পশ্চিম আফ্রিকার দেশ নাইজেরিয়া। দেশটির একদল বিজ্ঞানী কোভিড-১৯ এর ভ্যাকসিন আবিষ্কারের ঘোষণা দিয়েছেন বলে শনিবার স্থানীয় গণমাধ্যমের খবরে জানানো হয়েছে।

দেশটির কোভিড-১৯ রিসার্চ গ্রুপের প্রধান ডা. ওলাদিপো কোলাওলের বরাত দিয়ে স্থানীয় সংবাদমাধ্যম লিডারশিপ বলছে, এ ধরনের বৈশ্বিক মহামারির সমাধান প্রদানকারী হতে পারাটা আমাদের আবেগের। নাইজেরিয়ার এই চিকিৎসক বলেছেন, তাদের দলের তৈরিকৃত করোনার ভ্যাকসিনটি এখন বাস্তবতা।

শুক্রবারর ইডা প্রদেশের অ্যাডিলিকে বিশ্ববিদ্যালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে ডা. ওলাদিপো কোলাওলে বলেন, ভ্যাকসিনটি খাঁটি। আমরা বেশ কয়েকবার এই ভ্যাকসিন যাচাই করেছি।

তিনি বলেন, ভ্যাকসিনটির লক্ষ্য আফ্রিকানরা; তবে অন্যান্য জাতিগোষ্ঠীর জন্যও কাজ করবে। এটা কাজ করবে। এটা ভূয়া হতে পারে না। এটা দৃঢ় প্রচেষ্টার ফল। অনেক বৈজ্ঞানিক প্রচেষ্টায় এটি তৈরি হয়েছে।

নাইজেরীয় ওই সংবাদমাধ্যম বলছে, ওগবোমোশোর ট্রিনিটি ইমিউনোডিফিসিয়েন্ট ল্যাবরেটরি অ্যান্ড হেলিক্স বায়োজেন কনসাল্টের প্রায় ২০ হাজার মার্কিন ডলার অর্থায়নে এই ভ্যাকসিন গবেষণা প্রকল্পটির কাজ চলেছে।

ডা. ওলাদিপো কোলাওলে বলেছেন, সম্ভাব্য সর্বোত্তম ভ্যাকসিন ক্যান্ডিডেটস বাছাইয়ের জন্য আফ্রিকাজুড়ে ভাইরাসটির নমুনা থেকে জিনোম সংগ্রহ করে ব্যাপকভাবে কাজ করেছে তার দল। তবে এই ভ্যাকসিনটির কোনও নাম এখনও নির্ধারণ করা হয়নি।

তিনি বলেছেন, ভ্যাকসিনটি ব্যাপক পরিসরে ব্যবহারের জন্য কমপক্ষে আরও ১৮ মাস সময় লাগবে। এই সময়ের মধ্যে ভ্যাকসিনটি নিয়ে বৃহৎ পরিসরে গবেষণা, বিশ্লেষণ এবং মেডিক্যাল কর্তৃপক্ষের অনুমোদন নিতে হবে।

গত বছরের ডিসেম্বরে চীনের উহানে এই ভাইরাসটি উৎপত্তি হওয়ার পর বিশ্বের দুই শতাধিক দেশে ছড়িয়েছে। এখন পর্যন্ত ভাইরাসটির চূড়ান্ত কোনও প্রতিষেধক কিংবা ভ্যাকসিন আবিষ্কার হয়নি। তবে প্রায় এক ডজন ভ্যাকসিন মা’নবদেহে পরীক্ষার পর্যায়ে রয়েছে।

বিশ্বজুড়ে ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়েছে ৮৮ লাখের বেশি মানুষ; মা’’রা গেছেন ৪ লাখ ৬৩ হাজারের বেশি। সূত্র: আনাদোলু, লিডারশিপ।


এদিকে, বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বেশ কয়েকজন গবেষক করোনা ভাইরাসের কার্যকারি ভ্যাকসিন তৈরি করার আপ্রাণ চেষ্টা করে যাচ্ছে। ইতিমধ্যে কয়েকটি দেশে করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিন তৈরি করে তা মান’বদে’হে পরীক্ষাও করেছে। এমনকি চীন করোনার ভ্যাকসিন অবিসক্কার করার পর তা বানো’রেরদে’হে পরীক্ষা করেছে। এরপর চীনের গবেষকদল দাবি করছে তারা অনেকটা সফল হয়েছে। এছাড়া বিশ্বের বেশ কিছু দেশ থেকে বলা হচ্ছে এ বছররের শেষের দিকে হয়তো করোনা ভাইরাসের কার্যকারি ভ্যাকসিন পাওয়া যেতে পারে। আর এর মধ্যে নাইজেরিয়া ভ্যাকসিন নিয়ে এই সংবাদ দিয়েছে।