গত বছরের শেষের দিকে চিনে প্রথম করোনা ভাইরাস দেখা দেয়ার পর বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে পড়েছে। এদিকে, বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মানুষের মধ্যে করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ায়, সারা বিশ্বের মানুষেরা ব্যাপক ভীতিকর পরিস্থিতেতে রয়েছে। এদিকে, বিশ্বের বিভিন্ন দেশে অনেক বাংলাদেশি রয়েছে যারা করোনা ভাইরাসের কারণে অনেক ভয়ে রয়েছে। এমনকি বিশ্বের বিভিন্ন দেশ প্রবাসী বাংলাদেশি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে করোনা ভাইরাসে আরো সাত বাংলাদেশি আক্রান্ত হয়েছেন। দেশটিতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা সাড়ে তিন হাজার ছাড়িয়েছে। প্রাণনাশ হয়েছে ৬৯ জনের। ভয়ে দিন কাটাচ্ছেন প্রবাসী বাংলাদেশিরা। নিউইয়র্কের সব স্কুল আগামী ২০ এপ্রিল পর্যন্ত বন্ধ ঘোষণা করেছে রাজ্য সরকার ও সিটি কর্তৃপক্ষ।

যুক্তরাষ্ট্রে করোনা ভাইরাসে একদিনেই প্রাণনাশ হয়েছে ১১ জনের; আর আক্রান্ত হয়েছেন প্রায় সাড়ে সাতশ’ মানুষ। করোনা ভাইরাসের ভয়ে মধ্যে রোববার (১৫ মার্চ) নিউইয়র্কের সব স্কুল সাময়িক বন্ধ ঘোষণা করা হয়। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে স্কুল খুলবে ২০ এপ্রিল।

স্কুল বন্ধ হওয়ায় বাংলাদেশি শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মধ্যে কিছু হলেও স্বস্তি এসেছে। তবে বাংলাদেশিদের মধ্যে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়তে থাকায় ভয়ে রয়েছেন তারা।

নিউইয়র্কের মেয়র বিল ডি ব্লাজিও বলেন, আমরা এমনই চ্যালেঞ্জ নিয়ে কাজ করছি, যা আগে কেউ কখনো দেখেনি। অসংখ্য অজানা চ্যালেঞ্জও আমাদের মোকাবিলা করতে হবে। যদিও পৌঁছানো কঠিন হবে।

দ্রুত অবনতি হলেও রোববার নিয়মিত ব্রিফিংয়ে পরিস্থিতি সরকারের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে বলে দাবি করেছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট।

এদিকে করোনা ভাইরাসের ভয়ে দেশের বিমানবন্দরগুলো যাত্রী শূন্য হয়ে পড়েছে।


যুক্তরাষ্ট্রের বিমানবন্দরগুলোর এমন চিত্র নজিরবিহীন। তবে করোনা ভাইরাসের ভয়ে বিদেশে থাকা মার্কিন নাগরিকরা দেশে ফিরে আসছেন। তাদের চাপে হিমশিম খাচ্ছে ইউরোপের বিমানবন্দরগুলো।

এদিকে, করোনা ভাইরাস নিয়ন্ত্রনের জন্য বিশ্বের বেশ কিছু দেশ তাদের সাথে অন্য দেশের সাথে সকল রকম যোগাযোগ বন্ধ করে দিয়েছে। তবে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে যে সকল প্রবাসী রয়েছে তারা অনেক ভীতিকর পরিস্থিতিতে রয়েছে। একই সাথে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বেশ কয়েকজন বাংলাদেশি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। এছাড়া প্রবাসে কয়েকজন বংলাদেশির প্রাণনাশ হয়েছে।