সামজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের মাধ্যমে বর্তমানে অনেক তরুণ-তরুণীরা সম্পর্কে জড়ান। এমনকি তাদের এই সম্পর্কে অনেক দূর পর্যন্ত যায়। আর একটা সময় এই তরুণ-তরুণীরা দেখা করার সিদ্ধান্ত নেয়। তবে বেশিভাগ সময় তরুণীরা দেখা করার পর বড় রকমের বিপদে পড়েন। এমনকি অনেক যুবতী তার সর্বস্ব হারায়। আর এবার তেমনি একটি ঘটনা ঘটেছে চলন্ত ট্রেনে তরুণীর সাথে। তবে সেই ঘটনার সাথে জড়িত তরুণ আটক হয়েছে।

চট্টগ্রাম থেকে হবিগঞ্জ আসার পথে আন্তঃনগর পাহাড়িকা এক্সপ্রেস ট্রেনে এক তরুণীকে (৩০) ট্রেনের কেবিনে নিয়ে ধ** করার অভিযোগ উঠেছে। অভিযুক্ত যুবক সাঈদ আরিফকে (২৯) এ ঘটনায় আটক করেছে পুলিশ। গতকাল মঙ্গলবার (৮ সেপ্টেম্বর) এই ঘটনা ঘটে। এছাড়া ওই তরুণীকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
জানা যায়, দীর্ঘ ৫ বছর পূর্বে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে দুজনের পরিচয় হয়। এরপর তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। মঙ্গলবার সকালে ওই তরুণী চট্টগ্রাম থেকে হবিগঞ্জের উদ্দেশে আন্তঃনগর পাহাড়িকা এক্সপ্রেস ট্রেনে উঠেন। বিষয়টি ওই তরুণী পূর্বেই প্রেমিক সাঈদ আরিফকে জানিয়ে রাখেন। এসময় আরিফ তরুণীকে না জানিয়েই ফেনী থেকে শায়েস্তাগঞ্জ ষ্টেশনের টিকেট কেটে রাখেন। মঙ্গলবার দুপুরের দিকে ট্রেনটি ফেনী ষ্টেশনে আসলে আরিফ ওই ট্রেনে উঠেন। এসময় তরুণীকে ফু’সলিয়ে পাশ্ববর্তী কেবিনে নিয়ে ধ** করে আরিফ। এক পর্যায়ে ওই তরুণী অ’সুস্থ হয়ে পড়লে আরিফ পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন। কিন্তু ওই তরুণী আরিফকে পালাতে বাধা দেন। এসময় তরুণীর অসুস্থতার সুযোগ নিয়ে আবারও ধ** করেন আরিফ। পরে ট্রেনটি শায়েস্তাগঞ্জ জংশনে আসামাত্রই ওই তরুণী চিৎকার করলে স্থানীয় লোকজন কেবিন থেকে ওই তরুণীকে উদ্ধার করে এবং আরিফকে আটক করে। পরে তরুণীকে অসুস্থ অবস্থায় হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এদিকে, ঘটনার খবর পেয়ে হবিগঞ্জ সদর মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) উৎসব কর্মকার হাসপাতালে পৌঁছে আরিফকে জনতার কাছ থেকে থানা হেফাজতে নিয়ে যান। এ ব্যাপারে হবিগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মাসুক আলী বলেন, গতকাল ট্রেনে ওই তরুণীকে ধ** অভিযোগ পাওয়া গেছে। তবে বিষয়টি কতটুকু সত্য তা এখনও বলা যাচ্ছে না। তিনি জানান, তরুণীর স্বজনরা এখনও না আসায় কোন মামলা দায়ের হয়নি। মামলা দায়ের করলে তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এদিকে, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের মাধ্যমে বর্তমানে এমন অনেক সম্পর্ক বেড়ে গেছে আর এই সকল সম্পর্কের কারণে অসংখ্য তরুণ-তরুণীরা নানা রকম বিপদে পড়ছে। যার কারণে একটা সময় এই সকল ঘটনা ঘটছে। তবে এখন ওই ভুক্তভোগী তরুণীকে হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে এবং তাকে পরীক্ষা করে দেখা হবে। আর ওই যুবককে থানায় নেওয়া হয়েছে।